ওয়েবসাইটে নিয়মিত পোস্ট করার ৫টি সুবিধা জেনে নিন

নিয়মিত পোস্ট

ওয়েবসাইটে নিয়মিত পোস্ট করার ৫টি সুবিধা

ওয়েবসাইটে নিয়মিত পোস্ট করলে যেসব সুবিধা পাওয়া যায় সেসব বিষয় নিযেই আজকের আর্টিকেলটি। আমরা ব্লগিং করার সময় বিষয়টা অনেকেই খেয়াল করি না। তবে অনেক গরুত্বপূর্ণ বিষয়টা।

অনলাইনে আয় করার সবচেয়ে সহজ ও সবচেয়ে ভালো উপায় হলো গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আয় করা। বর্তমানে অনলাইন থেকে অনেকেই এর মাধ্যমে আয় করে থাকে। 
 
গুগল অ্যাডসেন্সযুক্ত ওয়েবসাইটে নিয়মিত পোস্ট করার ৫টি সুবিধা

 

গুগল অ্যাডসেন্সযুক্ত সাইট বলতে কি বোঝানো হয় ?

অনলাইনে আয় করার জন্য গুগল অ্যাডসেন্স এর অ্যাড সো করার মত সাইটগুলো এবং সেই সাইটগুলোতে গুগল অ্যাড সো করার অনুমতি দিলে সেটাকেই বলা হয় গুগল অ্যাডসেন্সযুক্ত সাইট। 
 

আরো পড়ুন >> ব্লগে বা ওয়েবসাইটে ভিজিটর বাড়ানোর ১৫টি কার্যকরী উপায়

 
বর্তমানে অনেকেই ব্লগিং ওয়েবসাইটে নিয়মিত পোস্ট করে আয় করে থাকে। আজকে আমি আপনাদের জানবো গুগল অ্যঅডসেন্সযুক্ত ওয়েবসাইটে নিয়মিত পোস্ট করার সুবিধা সম্পর্কে। 
 

১. পোস্টগুলো সহজেই ইন্ডেক্স হয়

 
গুগল অ্যঅডসেন্সযুক্ত ওয়েবসাইটে নিয়মিত পোস্ট করলে সেই পোস্ট গুলো ইন্ডেক্স হয় দ্রুত। কারণ ওয়েবসাইটটি গুগল অ্যাডসেন্স যুক্ত। 
 

আরো পড়ুন >> প্রযুক্তির কারণে মানুষের সৃস্মিশক্তি কেন কমে যায়

 
 
এছাড়াও এসব সাইটে ভালো কন্টেন্ট লিখে পোস্ট করলে সেগুলো গুগল অ্যাপ্রুভাল দেয় তাড়াতারি। ফলে কম সময়ে আয় করার একটি মাধ্যম হয়ে দাঁড়ায়। 
 

২. ওয়েবসাইটের র‌্যাংক বাড়ে

 
ওয়েবসাইটের র‌্যাংক বাড়ানোর জণ্য প্রয়োজন অত্যাধিক পোস্টের। আপনি অ্যাডসেন্সযুক্ত ওয়েবসাইটে যত পোস্ট করবেন সেগুলো ইন্ডেক্স হবে দ্রুত। 
 
আর পোস্ট ইন্ডেক্স হলে অরগ্রানিক ভিসিটর আসেবে অনেক এবং সেই সাথে সাথে ওয়েবসাইটটির র‌্যাংক বাড়তে থাকে খুব সহজেই। 
 
যে কো ওয়েবসাইট যদি দ্রুত র‌্যাংক বাড়ানোর প্রয়োজন হয় তাহলে অবশ্যই সেই ওয়েবসাইটে নিয়মিত পোস্ট করতে হবে। 
 
তবে নিয়মিত পোস্ট করার পাশাপাশি বড় করে মানে মিনিমাম ১ হাজার শব্দের পোস্ট করাটা অনেক বেশি জরুরী। কারণ এসইও করার জন্য আপনাকে মিনিমাম ৬০০ শব্দ লিখতেই হবে। 
 

আরো পড়ুন >> মোবাইল ফোন এর জনপ্রিয়তা কম্পিউটারের চাইতে বেশি হওয়ার কারণ

 
আর ৬০০ শব্দের বেশি হলে সেগুলো মানে সেই আর্টিকেলগুলো অনেক ভালো র‌্যাংক করে থাকে বলে যারা এসইও এক্সপার্ট তারা বলে থাকেন। 
 
আমাদের মধ্যে অনেকেই বড় বড় আর্টিকেল লিখে থাকেন আবার তারা নানা ধরনের কনটেন্টগুলো মধ্যে মিল কের ইন্টারনাল ও এক্সটারনাল লিংকও যুক্ত করে থাকেন। 
 

৩. ওয়েবসাইটের ভিসিটর বাড়ে

 
একটি ওয়েবসাইটের জনপ্রিয়তা অর্জন করতে হলে প্রয়োজন পর্যাপ্ত ভিসিটর। আর ভিসিটর পাওয়া এক মাত্র উপায় হলো অন্যাধিক পোস্ট করা। কারণ পোস্ট না করলে পোস্ট ইন্ডেক্স হবে না। 
 
ওয়েবসাইটের যত ভিসিটর বাড়বে তত আয় হওয়ার সম্ভবনা থাকে এবং ভিসিটর পাওয়া একমত্র মাধ্যম হলো অ্যাডসেন্স যুক্ত ওয়েবসাইট। 
 

আরো পড়ুন >> বাংলা গেস্ট পোস্টিং এর জন্য সেরা ৫ টি ওয়েবসাইট

 
সার্চ ভলিয়ম দেখে যদি কোন পোস্ট লিখা ও টাইটেল নির্বাচন করা যায় তাহলে সেটার ভিজিটর অবশ্যই বেড়ে যাবে। আর আমরা অনেক সময় প্রয়োজনীয় ও জরুরী বিষয়গুলো সামনে নিয়ে আসি। 
 
ধরুন বর্তমানে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের স্বাধিনতা নিয়ে অনেক বেশি মানুষ পড়াশোনা করে থাকে আর এই বিষয়টাই যদি আপনি ভালোমত লিখতে পারেন তাহলে অবশ্যই অনেক বেশি ভিজিটর পাবেন। 
 
এভাবেই সার্চ রেজাল্ট দেখে দেখে ভিজিটর নিয়ে আসা হয় ওয়েবসাইটে। বর্তমানে ভিজিটর নিয়ে আসার অন্যতম পদ্ধতি হলো ভিডিও কনটেন্ট এবং পডকাস্ট কনটেন্ট। 
 

আরো পড়ুন >> সহজে ওয়েবসাইট তৈরির নিয়মাবলী

 
ভিডিও কনটেন্ট তো আমরা অনেকেই জানি কিন্তু পডকাস্ট কনটেন্টগুলো আমরা এখন এতটা বেশি জানি না। আর এই পডকাস্ট কনটেন্টগুলোও ভিডিও কনটেন্ট এর মতই ভিজিটর নিয়ে আসতে সহযোগীতা করে থাকে। 
 
আজ থেকে দুই বছর আগে অর্থ্যাৎ ২০১৯ সালের শেষে দিকে পডকাস্ট কনটেন্টগুলো মূল্যায়ন শুরু হয়। বর্তমানে Neflex & Amazon এর মত সাইটগুলোও এই ধরনের কনটেন্ট নির্বাচনে ব্যস্ত। 
 

৪. ওয়েব সাইটটি পপুলার হয়

 
নিয়মিত পোস্ট করার মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট সকলে কাছে একটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট হয়ে যাবে। 
 
কারণ অ্যাডসেন্সযুক্ত ওয়েবসাইটে পোস্ট করলে সেগুলো গুগলে র‌্যাংক কররেব খুব সহাজেই এবং সকলের কাছে একটি পরিচিত ওয়েবসাইট হিসেবে বিবেচিত হবে। 
 

আরো পড়ুন >> একটি ফেসবুক পেজ জনপ্রিয় করার উপায় গুলো কি

ওয়েবসাইট পপুলার করার আরও অনেক উপায় থাকলেও নিয়মিত পোস্ট করলে গুগলের কাছে ভালো একটি বার্তা যায় বলে ধারণা করা হয়ে থাকে। আর এই ধারণা থেকে বলা হয় নিয়মিত পোস্ট করার জন্য। 
 
যদিও আরও অনেক উপায় রয়েছে তবে এই পদ্ধতিটা অনেক বেশি সহজ এবং অনেক বেশি কার্যকর বর্তমান সময়ের জন্য। 
 

আরো পড়ুন >> নিজেই নিজের ওয়েবসাইট তৈরি করে আয় করুন

 
বেশ কিছু ওয়েবসাইট যদি আপনি দেখেন তাহলে দেখবেন তাদের ওয়েবসাইটে নিয়মিত কিছু কনটেন্ট দেওয়া আছে। অনেকেই আছে এই বিষয়টাতে অনেক বেশি গুরুত্বসহকারে দেখে থাকে। 
 
প্রতিদিন যদি একই সময়ে কনটেন্ট পাবলিশ করা যায়। তাহলে গুগলের কাছে একটা ভালো খবর যায়। আর এই কারণে অনেক সাইট আছে যেগুলো পপুলার করার জন্য শুরু তেই অনেক বেশি নিয়মিত পোস্ট করে থাকে। 
 

৫. সাইটটি আবডেট থাকে

 
ব্লগিং ওয়েবসাইটকে নিয়মিত পোস্ট করার মাধ্যমেই আপডেট করা যায়। আর ওয়েবসাইট আপডেট থাকেলে সকলের কাছে পরিচিতি লাভ করা যায় গুগল অ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে। তাই সাইটকে আপডেট রাখার জন্য নিয়মিত পোস্ট করা প্রয়োজন। 
 
কোন ওয়েবসাইট বা কোন ব্লগসাইট নিয়মিত আপডেট রাখতে হলে অবশ্যই আপনাকে নিয়মিত পোস্ট করতে হবে। পোস্ট করার নানা নিয়ম থাকলেও নিয়মিত পোস্ট মধ্যে সামান্য কিছু নিয়ম মেনে চললেই যথেস্ট। যেমন, 
 
(ক) সপ্তাহে ১টা পোস্ট করা যেতে পারে। 
(খ) সপ্তাহে ২টা পোস্ট করা যেতে পারে। 
(গ) মাসের এভাবে ৪টা বা ৮টা পোস্ট করা যেতে পারে। 
(ঘ) প্রতিদিন একটা করে পোস্ট করা যেতে পারে। 
 

আরো পড়ুন >> কম টাকায় ভালো হোস্টিং কিনবেন কোথায় থেকে

 
(ঙ) প্রতিদিন একই সময়ে পোস্ট করা যেতে পারে। 
(চ) প্রতিদিন বা যখনই পোস্ট করা হোক রাত ৯টার সময় করা যেতে পারে। কারণ আমেরিকার শুরুর সময় হলো এইটা। 
 

শেষ কথা

আশা করি প্রতিবেদনটি আপনার উপকারে আসবে। ব্লগিং সম্পর্কে কোনো তথ্য জানার থাকলে কমেন্ট করে বলতে পারেন। এক্ষণ সাথে থাকার জন্য আপনাকে অসখ্য ধন্যবাদ। 


আরো পড়ুন >> ব্লগে অথবা ওয়েবসাইটে ভিজিটর বাড়ানোর কিছু টিপস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *