পৃথিবীর সেরা ৫টি খনিজ সম্পদ সম্পর্কে জানুন

খনিজ

পৃথিবীর সেরা ৫টি খনিজ সম্পদ সম্পর্কে জানুন

পৃথিবীতে আছে অনেক সম্পদ। এদের মধ্যে কোন সম্পদ অনেক উপকারী আবার কোন সম্পদ যেগুলো খনি থেকে উঠাতে অনেক ব্যয় করতে হয়।

আজকের আর্টিকেলে এমন ৫টি খনিজ সম্পদের কথা বলবো যা আপনাদেরকে অজানা বিষয়ে জানতে আগ্রহী করবে। 

পৃথিবীর সেরা ৫টি খনিজ সম্পদ সম্পর্কে জানুন

 

খনিজ সম্পদ বলতে কি বোঝায় ? 

খনি থেকে প্রাপ্ত সম্পদকে খনিজ সম্পদ বলা হয়। আমাদের দেশের যেসব সম্পদ আমরা খনি থেকে পেয়ে থাকি সেগুলোকেই মূলত খনিজ সম্পদ বলা হয়ে থাকে। আর এরকম অনেক সম্পদ রয়েছে যেগুলো প্রাকৃতিক ভাবেই হয়।

৫টি খনিজ সম্পদের নাম হলো। যথাঃ- 

১. গ্যাস 

২. তেল বা জ্বালানি তেল 

৩. কয়লা 

৪. মার্বেল 

৫. মূল্যবান ধাতু 

উপরোক্ত ৫টি বললাম অনেক বেশি পরিচিত এবং অনেক বেশি পরিমাণে পাওয়া যায় এমন ৫টি নামের লিস্ট। এছাড়াও আরও অনেক ধরনরে প্রাকৃতিক সম্পদ আছে আমাদের দেশে এবং বাইরের দেশে। 

১. গ্যাস 

গ্যাস পুরো পৃথিবীর একমাত্র প্রাকৃতিক সম্পদ যা আমরা ইচ্ছাকৃতভাবে তৈরি করতে পারি না। 

আমাদের কথা যদি বলি তবে বলতে হবে। কিছুদিন আগে সিলেটে যেই গ্যাসের সন্ধ্যান পাওয়া গেছে। 

সেখানে এত পরিমাণে গ্যাস আছে যে, আমাদের দেশের চাহিদা মেটানোর জন্য অনেক যথেষ্ট। 

এবং বেশ কয়েক বছর চালানো যাবে এই গ্যাস দ্বারা। যদিও এগুলো উঠাতে হলে অনেকটাই সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়। 

 

২. তেল বা জ্বালানি তেল 

জ্বালানি তেলের চাহিদা অনেক বেশি আমাদের দেশে। এই জ্বালানি তেলে কোন খনিজ আমাদের দেশে পাওয়া না গেলেও এটিও আছে বলে ধারনা করা হয়।

সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার এসব দেশে প্রচুর পরিমাণে জ্বালানি তেল মজুদ আছে বলে ধারণা করা হয়। 

সৌদি আরব সহ পাশ্ববর্তি দেশগুলোতে এই খনিজ তেলে পরিপূর্ণ। তারা তাদের দেশের অর্থ উপার্জন করার মাধ্যম হিসেবেই এটি ব্যবহার করে থাকে। 

বলা হয়ে থাকে, সৌদিতে এত বেশি পরিমাণে জ্বালানি তেল মজুদ আছে যা দিয়ে পুরো পৃথিবী চালানো যাবে। 

 

৩. কয়লা 

উপমহাদেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি কয়লা উৎপন্ন বা উৎপাদন হয় ভারতে। কিছুদিন আগের পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি করার আগে. 

আমাদের দেশে কয়লা চালিত বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরির একটা প্রস্তাব আসে। আর এই কয়লার জোগান দিবে পার্শবর্তি দেশ ভারত। 

আসলে ভারতের কয়লাগুলো আমাদের দেশে দেওয়ার মাধ্যমে তারা তাদের কয়লার একটা বাণিজ্যিক জায়গা তৈরি করার পরিকল্পনা তৈরি করেছি। 

আর কয়লায় চালিত কোন বিদ্যুৎ কেন্দ্রের আশে পাশের কয়েক কিলোমিটার এলাকার পানি দূষিত হবে। 

এবং মূল্যবান প্রাকৃতিক সম্পদ যেমন, বনভূমি, জীব জন্তুসহ আরও অনেক প্রাণীর মৃত্যুর কারণ হবে। 

এমনকি আশেপাশের এলাকা বসবাসের অনুপযোগী হয়ে উঠবে। তাই আমাদেরকে অবশ্যই সচেতন হতে হবে। 

 

 

৪. মার্বেল 

মার্বেল মূল্যবান ধাতুর মধ্যে অন্যতম একটি ধাতু। মার্বেল সাধারণত আমাদের দেশের কম পাওয়া গেলেও ভারতে অনেক বেশি পরিমাণে পাওয়া যায়। 

ভারত দেশটা অনেক বড় আর এদেরও প্রাকৃতিক সম্পদের পরিমাণটাও অনেকটাই বেশি। 

আমাদের দেশের মত না হলেও ভারতের জনসংখ্যার তুলনায় প্রাকৃতিক সম্পদের পরিমাণ অনেক বেশি। 

আসলে আমাদের এই ভারতীয় উপমহাদেশে এক সময় বৃটিশ শাসন পরিচালিত হয় এবং সেই সময়কার বিভিন্ন ধরনের প্রাকৃতিক সম্পদগুলো এখনও আমাদের দেশের মাটির নিচেই আছে যা এখনও উঠানোা হয় নাই। 

যদিও প্রযুক্তির কল্যানে কিছু প্রাকৃতিক সম্পদ উঠানোর চেষ্টা করা হয়েছে এবং উঠাতেও সক্ষম হয়েছে তবে তার অনেক বড় অংশ এখনও আমাদের কাছে অজানাই রয়ে গেছে। 

 

৫. মূল্যবান ধাতু 

মূল্যবান ধাতুগুলোর মধ্যে যেসব ধাতু গুলো অনেক বেশি শক্তির উৎস সেগুলোকে বোঝানো হয়েছে। 

আসলে আমাদের দেশের প্রচুর পরিমাণে প্রাকৃতিক গ্যাস রয়েছে বিধায় মূল্যবান ধাতুর প্রতি এতটা বেশি নজর দেওয়া হয় না। 

তারপরেও মার্বেল, পাথরসহ আরও কিছু মূল্যবান ধাতু মাঝে মাঝেই লক্ষ্য করা যায়। যেগুলো প্রাকৃতিক সম্পদ হিসেবে পরিচিত। 

 

উপরের ৫টি বিষয় ছাড়াও স্বর্ণ, রৌপ, হিরা, ডায়মন্ড আরও নানা রকেরম খনিজ সম্পদ পাওয়া যায়। আামদের দেশের প্রাকৃতিক সকল সম্পদই খনিজ সম্পদ হিসিবে পরিচিত। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *