বিদ্যুৎ ও পাানির বিল বিকাশ করার ৫টি সুবিধা জেনে রাখুন

বিদ্যুৎ ও পাানির বিল

বিদ্যুৎ ও পাানির বিল বিকাশ করার ৫টি সুবিধা

বর্তমানে প্রযুক্তির ছোয়ার কারণে আমাদের দেশে অনলাইনে ব্যাংকিং অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। মোবাইল ব্যাংকিং এর মধ্যে সবচেয়ে ভালো হলো বিকাশ। এর মাধ্যমেই আমরা অন্যান্য বিল দেওয়ার পাশাপাশি বিদ্যুৎ ও পানির বিল অনেক নিরাপদে দিয়ে দিতে পারি।

অনলাইনে কাজ করা অনেক সুবিধা। এখানে বিদ্যুৎ ও পাানির বিল আপনি যদি বিকাশের মাধ্যমে পরিশোধ করেন তাহলে আমরা সময় সেভ হচ্ছে। অনলাইনের মাধ্যমে বিল দিলে খরচ কম হয়। 
 
বিদ্যুৎ ও পাানির বিল
বিদ্যুৎ ও পাানির বিল বিকাশ করার ৫টি সুবিধা জেনে রাখুন

আরো পড়ুন >> বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম  

বিকাশের মাধ্যমে আপনি কি কি বিল দিতে পারবেন ?

অনলাইন বিকাশ অ্যাপস ব্যবহার করে আপনি বিদ্যুৎ বিল, পানির বিল, গ্যাস বিল, অফিসের বিল, ইন্টারনেট বিল, শিক্ষা ও সরকারী বিভিন্ন মাধ্যমে বা সরকারী বিলগুলোও আপনি বিকাশে করতে পারেন।
 
বর্তমান সময়ে সবকিছুই অনলাইনে করা হয় আর এজন্যই বিদ্যুৎ ও পানির বিল ঘরে বসেই বিকাশের মাধ্যমে পরিশধ করা হয়। 
 
বিকাশের মাধ্যমে বিল পরিশধ করার কয়েকটি সুবিধা নিয়েই আজকেই প্রতিবেদন।
 

১. সময় কম লাগে

আমরা অনেক সময় ব্যাংক অথাব কোনো বিল পরিশোধের দোকানে গিয়ে বিদ্যুৎ ও পানির বিল দিয়ে থাকি। 
 
এক্ষেত্রে অনেক সময় ব্যায় হয় কিন্তু যদি আপনি ঘরে বসে বিকাশের মাধ্যমে বিদ্যুৎ ও পানি বিল পরিশোন করেন তাহলে আপনার সময় অনেকটাই কম লাগে। 
 
তাই সময়কে বাচাতে হলে বিকাশের মাধ্যমেই বিদ্যুৎ ও পানির বিল পরিশোন করাই অনেক ভালো এবং বিকাশে অনেক কম সময়ে বিল পরিশোধ করা যায়। 
আপনি যদি পানির বিল ও বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার জন্য ব্যাংকে যান তাহলে আপনাকে অনেক সময় ব্যায় করতে হবে। অপরপক্ষে যদি আপনি বাসায় বসে বিকাশের মাধ্যমে বা বিকাশ অ্যাপস থেকে দেন তাহলে অনেক কম সময় ব্যায় করতে হবে। যেটা অনেক বেশি সুবিধার বর্তমান সময়ের জন্য।
আমরা অনেকেই সময়ের দামটা বেশি দিয়ে থাকি। আর বর্তমানে অর্থের চাইতে অনেক সময় সময়ের দাম অনেক বেশি।  আশা করবো আপনারাও বিদ্যুৎ ও পানির বিল বিকাশ বা মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে দেওয়ার চেষ্টা করবেন সময় বাচানোর জন্য।
 

২.  বাসাই বসে দেওয়া যায়

বর্তমান সময়ে প্রযুক্তি বা অনলাইন আমাদের জীবনকে অনেক সহজ করে দিয়েছে। যে কোনো কাজ ঘরে বসেই করা যায় ইন্টারনেট এর মাধ্যমে। 
 
এমনকি বাড়ির বিদ্যুৎ ও পানির বিলটাও অনলাইনে দেওয়া যায়। বিকাশের মাধ্যমে এটি খুব সহজেই পরিমোধ করা যায়। যা আমাদের জীবনকে অনেক সহজ করে দিয়েছে। বিদ্যুৎ ও পাানির বিল বর্তমানে আমরা ঘরে বসেই দিয়ে থাকি। 
অনেকেই আছেন বিষয়টা এখনও জানেনই না। আর তাদেরকে জানানোর জন্য অবশ্যই আমাদেরকে চেষ্টা করতে হবে। এবং ব্যাংক লেনদেন কমিয়ে দিয়ে মোবাইল ব্যাংকিং সেবাটাতে আরও সুবিধামত করে নিতে হবে।
বর্তমানে বিদ্যুৎ ও পানির বিল এর পাশাপাশি আরও অনেক সেবা চালু করেছে বিকাশ কর্তৃপক্ষ।
 

৩. যাতায়াত খরচ লাগে না

আমরা সাধারণত বিদ্যুৎ ও পানির বিল পরিশধের জন্য ব্যাংক অথাব বাজারের দোকান ব্যবহার করি। সেখানে যেতে হলে আমাদের রিক্সাসা অথাব কোনো গাড়িতে যেতে হবে। 
 
এক্ষেত্রে আপনি বিকাশের মাধ্যমে বিল পরিশোধ করলে আপনা রিক্সাসা অথাব গাড়িতে যাওয়ার প্রয়োজন লাগবে না অথবা খরচও লাগবে না। ঘরে বসেই বিকাশ করতে পারবেন খুব সহজেই। বিদ্যুৎ ও পাানির বিল যদি আপনি দেন তাহলে ঘরে বসেই দিতে পারবেন। বর্তমানে মোবাইল বাংকিং এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে আছে বিকাশ। 
যদিও কিছু সমস্যার মধ্যে অন্যতম হলো নিয়মিতই আমাদের বেশি ক্যাশাউট খরচ বহন করতে হয় বিকাশের মাধ্যমে। আর এই সমস্যাটার সমাধান করার জন্য আমাদেরকে অবশ্যই চেষ্টা করতে হবে। যেমন, প্রয়োজনের অতিরিক্ত লেনদেন না করা বা যতটুকু প্রযোজন ততটুকুই উঠানো।
 

৪. ডকুমেন্ট নিজের কাছে থাকে

বিদ্যুৎ ও পানি বিল পরিশোধ করা পরে একটা ডকুমেন্ট থাকে। এটি অনেক সময় আমাদের বিভিন্ন উপকারে আসে। 
 
তাই খুব সাবধানতার সাথে এটিকে রেখে দিতে হয়। যতই সাবধানতা অবলম্বন করুন না কেন একসময় এটি হারিয়ে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে। 
 
কিন্তু যদি অনলাইন অথবা বিকাশের মাধ্যমে বিল পরিশোধ করেন তাহলে তার একটা ডকুমেন্ট সবসময় আপনার কাছে থাকবে। 
 
এটি হারিয়ে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে না। যতদিন খুশি তত দিন আপনার কাছেই ডকুমেন্ট রাখতে পারেন। 
প্রতিবার যখন আপনি বিল পেমেন্ট করবেন ততবারই আপনি ডকুমেন্ট পেয়ে যাবেন। আর রিসিটটা আপনি চাইলে ডাউনলোড করে রেখেও দিতে পারবেন। আবার আপনার একাউন্টে অনলাইনেই একটা ডকুমেন্টস থেকে যাচ্ছে।
ব্যাংকে দিলেও ডকুমেন্ট তাকে তবে বিকাশের মাধ্যমে দিলে আপনি একটা ম্যাসেজ পাবেন এবং একটা রিসিট পাবেন যেটা আপনি যদি রেখে দেন তাহলে সেটাই যথেস্ট পরবর্তীতে কোন সমস্যা হওয়ার জন্য।
আমরা অনেকেই মনে করি এটার মাধ্যমে পরবর্তীতে কোন সমস্যা ফেস করতে হয় তবে বর্তমানে আসলে এটার জন্য কোন সমস্যা ফেস করতে হয় না। বরং অনলাইন বা অফলাইনে এই প্রচার ও প্রচারণাটা অনেকটাই বেশি দেখা যাচ্ছে।  শুধু যে পানির বিল ই দেওয়া যায় বিষয়টা তেমন নয়।
 

৫. যখন ইচ্ছা পরিশোধ করা যায়

অনলাইন অথবা বিকাশের মাধ্যমে বিদ্যুৎ ও পানির বিল পারিশোধের কোনো ঝামেলা বা তাড়াহুড়া থাকে না। যখন মন চাইবে তখনই বিল পরিশধ করতে পারবেন। 
 
আপনি বাংলাদেশের যে প্রান্তেই থাকুন না কেন, যে কোনো অবস্তাই, যে কোনো পরিস্থিতিতে বিল পরিশোধ করতে পারবেন খুব সহজেই। আর এই সহজ কাজটিই অনলাইন বা বিকাশ আমাদের করে দিয়েছে। 
বিকাশ তার গ্রাহকদেরকে অনেক বেশিই সুবিধা দিয়ে থাকে বর্তমানে। বিভিন্ন মিডিয়ার মাধ্যমে প্রচার চালানো হচ্ছে মাত্র দুইটা বিল প্রতি মাসে ফ্রিতে পরিশোধ করা যাবে। যদিও অনেকেই আগে থেকেই বিকাশের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিল থেকে শুরু করে গ্যাস ও পানির বিল পরিশোধ করে থাকে।
আপনি ব্যাংকে যদি বিল পরিশোধ করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই ব্যাংক সময় যেমন, সকাল ১০টা থেকে ১২টার মধ্যেই আপনাকে যেতে হবে। কিন্তু আপনি যদি বিকাশের মাধ্যমে পরিশোধ করতে চান তাহলে আপনি যখন ইচ্ছা পরিশোধা করতে পারবেন।
এটার জন্য নির্দিষ্ট কোন টাইম ফিক্সড করা নেই। আর বর্তমানে আমরা যেটা বেশি চিন্তা করি সেটা হলো, ব্যাংকে যাতায়াত মিলে যতটুকু খরচ সেই খরচ দিয়ে যদি আপনি বাসায় বসে চার্জ দিয়েও দিতে পারেন আপনার সময়টা সেভ হবে অনেক।  পানির বিল গুলো অনেক সময়ই আমাদের সমস্যা হয়ে যায় যেটা আমরা বিকাশের মাধ্যমেই পরিশোধ করতে পারি অনেক সহজেই।
 

শেষ কথা

আশা করবো অনলাইন  অথবা বিকাশের মাধ্যমে বিল পরিশধ করা সুবিধাগুলো বুঝতে পেরেছেন।  প্রতিবেদনটি ভালো লাগলে জানাতে ভুলবেন না এবং কোন ধরনের প্রতিবেদন আপনি পছন্দ করে সেটাও জানিয়ে দিবেন। ধন্যবাদ

বিকাশ সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন জেনে নিন সহজেই 

১. প্রশ্নঃ- বিকাশ কাস্টমার কেয়ার এর সাথে কিভাবে যোগযোগ করবেন ?
উত্তরঃ-  বিকাশ কাস্টমার কেয়ার প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা থেকে ৭টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।
আবার আপনি ১৬২৪৭ নাম্বারে কল করেও এই সেবাটি নিতে পারবেন অতি সহজেই। বর্তমানে বিকাশ কাস্টমার কেয়ার অনেক বেশি সুবিধা দিয়ে থাকে তাদের গ্রাহকদেরকে।
২. প্রশ্নঃ- বিকাশ ক্যাশ আউট চার্জ সম্পর্কে জানতে চাই ?
উত্তরঃ- বিকাশ ক্যাশ আউটি চার্জ আগে বাটন ফোন থেকে ১৮.৫০ টাকা প্রতি হাজারে এবং অ্যাপস থেকে ছিল ১৭.৫০ টাকা প্রতি হাজারে।
বর্তমানে শুধুমাত্র একটা এজেন্স বিকাশ নাম্বারে ১৪.৯০ টাকা প্রতি হাজারে অপরপক্ষে ১৮.৫০ টাকা প্রতি হাজারে অন্যসব এজেন্ট নাম্বারে খরচ হবে।
Tag
বিদ্যুৎ ও পাানির বিল
বিকাশের মাধ্যমে বিল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *