Topology সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে রাখুন

Topology

Topology সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে রাখুন

Topology এক ধরনের নেটওয়ার্ক যা আমাদের বিভিন্ন সময় বিভিন্ন উপকারে আসে। আজকের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আমি টপোলজি সম্পর্কে আপনানের ধারণা দেওয়া চেষ্টা করবো।

 

Topology
কোন কোম্পানির অফিসে যে ধরনের টপোলজি ব্যবহার করা হয়, বাড়িতে কিন্তু তার থেকে সম্পূর্ণ আলাদা ধরনের Topology ব্যবহৃত হয়। এই জন্য টপোলজির ঘটনায় ভিত্তিতে, Topology কে বিভিন্ন প্রকারে ভাগ করা হয়।

 

টপোলজি বলতে কী বোঝায়?

বর্তমানে আমরা সকলেই জানি যে কম্পিউটার নেটওয়ার্ক বিভিন্ন ধরনে হয়। আবার দুটির বেশি কম্পিউটার পরস্পরের সাথে যুক্ত করে ডাটা একটি থেকে আরেকটিতে শেয়ার করা হয়।

আর এই ডাটা গুলো শেয়ার করার জন্য আমাদের বিভিন্ন ধরনের নেটওয়ার্ক এর প্রয়োজন পড়ে এবং এই নেটওয়ার্ক গুলো বিভিন্ন ধরনের হয়। নেটওয়ার্কের এই বিভিন্ন গঠনকেই টপোলজি বলা হয়। আশা করি সকলেই বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন।

 

সাধারণত এই নেটওয়ার্ককে কয়েকটি ধাপে ভাগ করা হয়েছে। নিচে এই নেটওয়ার্ক গুলোর নাম দেওয়া হলো-

 

১. বাস টপোলজি

যে টপোলজিতে একটি মূল তারের সাথে সবকটি ওয়ার্কস্টেশন বা কম্পিউটারে সংযুক্ত থাকে তাকে বাস টপোলজি বলা হয়। বাস টপোলজি কিছুটা দেখতে বাসের মতো জন্য এর নাম দেওয়া হয় বাস টপোলজি। বাস টপোলজির ছোট আকারের নেটওয়ার্কে ব্যবহার খুব সহজ এবং সাশ্রয়।

 

২. স্টার টপোলজি

যে টপোলজি একটি কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণকারী কম্পিউটার বা হস্ত কম্পিউটারের সাথে অন্যান্য কম্পিউটার সংযুক্ত করে নেটওয়ার্ক গরে তোলে তাকে স্টার টপোলজি বলা হয়। এই টপোলজিটা দেখাতে স্টারের মতো বলে এর নাম দেওয়া হয় স্টার টপোলজি।

 

৩. ট্রি টপোলজি

যে টপোলজিতে কম্পিউটারগুলো পরস্পরের সাথে গাছের শাখা-প্রশাখার মতো বিন্যস্ত থাকে তাকে ট্রি টপোলজি বলে। এই টপোলজিটি দেখতে কিছুটা গাছের মতো তাই সকলেই এর নাম দিয়েছে ট্রি টপোলজি।

 

৪. রিং টপোলজি

রিং টপোলজিতে প্রতিটি কম্পিউটার তার পার্শ্ববর্তী কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত থাকে। এ অবস্থায় ডেটা পাঠানো হলে তা বৃত্তকার পথে ঘুরতে থাকে যতক্ষন না পর্যন্ত প্রাপক কম্পিউটার ডেটা গ্রহণ করে। আর এই টপোলজিতে দেখতে রিং এর মতো।

 

৫. মেশ টপোলজি

যদি কোনো নেটওয়ার্কে ডিভাইস বা কম্পিউটারগুলোর মধ্যে অতিরিক্ত সংযোগ থাকে তাহলে তাকে বলা হয় মেশ টপোলজি। এই টপোলজিতে ডেটা গুলোর কমিউনিকেশন অনেক ভালো থাকে। এছাড়াও নেটওয়ার্ক গুলোর সমস্যার সমাধান খুব সহজেই করা যায়।

 

উপরের এই কয়েকটি টপোলজি ছাড়াও আরো অনকে টপোলজি আছে। আশা করি উপরের যেই টপোলজি গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে সবগুলো ভালো মতো বুঝতে পেরেছেন। টপোলজি সম্পর্কে ভালো ধারণা পেতে হলে ৮ম ও ৯ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বইয়ের প্রথম অধ্যায় দেখতে পারেন।

 

উপসংহার

এই হলো আমাদের আজকের প্রতিবেদন। প্রতিটি মানুষের Topology সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে রাখা প্রয়োজন। আমার মনে হয় আমাদের এই প্রতিবেদন থেকে আপনি সেটি পুরোপুরি বুঝে গেছেন।

আপনার মূল্যবান সময় ব্যায় করে আমাদের এই প্রতিবেদনটি পড়ার জন্য আপনাকে অসখ্য ধন্যবাদ। আর নিয়োমিত এরকম আপডেট পেতে হলে আমাদের এই ওয়েব সাইটের সাথেই থাকবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *